1. admin@jajirasomoy.com : admin : admin
নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মাণের অভিযোগ, তদন্তে দুদক - জাজিরা সময়
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন
[pj-news-ticker]

নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মাণের অভিযোগ, তদন্তে দুদক

বিশেষ প্রতিনিধি: মো. ছগির হোসেন
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪
  • ১৬ Time View

শরীয়তপুরের জাজিরা ক্যান্টনমেন্ট থেকে পূর্ব নাওডোবার গনিরমোড় পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়কে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারসহ ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে এলজিইডি ও ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। এই সড়কের অনিয়ম নিয়ে গত ৪ এপ্রিল একটি সংবাদ প্রকাশ করে ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন।

পরে আজ মঙ্গলবার দুপুরে সড়কটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের দুদকের একটি প্রতিনিধি দল। এর আগে এলজিইডি জেলা কার্যালয় থেকে সড়কটির সংস্কারকাজের নথিপত্র সংগ্রহ করে দুদক।

তিন কিলোমিটার ও সড়কটি সংস্কারে ব্যয় ধরা হয় ৪ কোটি টাকা। স্থানীয়দের অভিযোগ সংস্কারের পর এক সপ্তাহ না যেতেই উঠে যায় সড়কের কার্পেটিং। হাত দিয়ে কার্পেটিং উঠাতে দেখা গেছে স্থানীয়দের।

নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মাণের অভিযোগ, তদন্তে দুদক

সড়কটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের দুদকের একটি প্রতিনিধি দল।
সড়কটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের দুদকের একটি প্রতিনিধি দল।
শরীয়তপুরের জাজিরা ক্যান্টনমেন্ট থেকে পূর্ব নাওডোবার গনিরমোড় পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়কে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারসহ ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে এলজিইডি ও ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। এই সড়কের অনিয়ম নিয়ে গত ৪ এপ্রিল সংবাদ প্রকাশ করে ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন।

পরে আজ মঙ্গলবার দুপুরে সড়কটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের দুদকের একটি প্রতিনিধি দল। এর আগে এলজিইডি জেলা কার্যালয় থেকে সড়কটির সংস্কারকাজের নথিপত্র সংগ্রহ করে দুদক।

তিন কিলোমিটার ও সড়কটি সংস্কারে ব্যয় ধরা হয় ৪ কোটি টাকা। স্থানীয়দের অভিযোগ সংস্কারের পর এক সপ্তাহ না যেতেই উঠে যায় সড়কের কার্পেটিং। হাত দিয়ে কার্পেটিং উঠাতে দেখা গেছে স্থানীয়দের।

এ ব্যাপারে দুদকের মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক খন্দকার কামরুজ্জামান বলেন, ‘সড়কটির সংস্কার প্রজেক্ট ছিল। এখানে অভিযোগ ছিল নিন্মমানের কাজ করে টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে কাজের মান যাচাই করার জন্য আমরা স্যাম্পল (নমুনা) নিয়েছি। আমরা ল্যাবটেস্ট করবো, ল্যাবটেস্ট করার পর রিপোর্ট কমিশনে পাঠিয়ে দেব। ল্যাবটেস্ট রিপোর্ট পাওয়া ছাড়া আমাদের কিছু বলার সুযোগ নেই।’

এসময় দুদকের মাদারীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক খন্দকার কামরুজ্জামান, শরীয়তপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম রাফেউল ইসলাম, ঠিকাদার রাশেদ উজ্জামান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

জাজিরা সময়

Please Share This Post in Your Social Media

মন্তব্য বন্ধ আছে।

More News Of This Category
জাজিরা সময় নিউজ পোর্টাল ও অনলাইন টিভি চ্যানেল
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট @ Themes Seller.